রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে শতভাগ বেতন-ভাতা ও পেনশন প্রথা চালুর দাবীতে

লামা পৌর কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কর্মবিরতি পালন

মো. নুরুল করিম আরমান, লামা বান্দরবান প্রতিনিধি
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ২ জুলাই ২০১৯ সময়- ১০:৩৩ অপরাহ্ন

লামায় সকল কাজ বন্ধ রেখে কর্মবিরতি পালন করছেন পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ।
লামায় সকল কাজ বন্ধ রেখে কর্মবিরতি পালন করছেন পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ।

বান্দরবান : রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে শতভাগ বেতন-ভাতা প্রদানসহ পেনশন প্রথা চালুর দাবীতে কর্মবিরতি পালন করেছেন বান্দরবানের লামা পৌরসভার কর্মকর্তা কর্মচারীরা।

‘এক দেশে দুই নীতি, মানি না, মানবো না’ এ শ্লোগানকে প্রতিপাদ্য করে সোমবার সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত পৌরসভার সামনে বসে সব ধরণের কাজ বন্ধ রেখে কর্মকর্তা কর্মচারীরা এ কর্মসূচী পালন করেন। বাংলাদেশ পৌর কর্মকর্তা-কর্মচারী এ্যাসোসিয়েশনের কেন্দ্রীয় কর্মসূচীর অংশ হিসেবে এ কর্মবিরতি পালন করেন তারা। কর্মবিরতির কারণে প্রশাসনিকভাবে ভোগান্তিতে পড়েন পৌরবাসী।

সূত্র জানায়, রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে শতভাগ বেতন ভাতাসহ পেনশন প্রথা চালুর দাবীতে বাংলাদেশ পৌর কর্মকর্তা-কর্মচারী এ্যাসোসিয়েশন দেশব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করে আসছে, তারই ধারাবহিকতায় লামা পৌরসভার কর্মকর্তা কর্মচারীরা সকাল ৯টা থেকে সব কাজ বন্ধ রেখে কর্মবিরতি পালন শুরু করে। কর্মবিরতিতে পৌরসভার সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীরা স্বতস্ফূর্তভাবে অংশ গ্রহণ করেন।

এতে পৌরসভার প্যানেল মেয়র মোহাম্মদ হোসেন বাদশা ও কাউন্সিলর মো.সাইফুদ্দিন সংহতি প্রকাশ করে বলেন, পৌরসভা কর্মকর্তা কর্মচারীদের দাবী যৌক্তিক। তাদের দাবী মেনে নিয়ে রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে বেতন ভাতা প্রদান করা হলে, পৌরসভায় স্থানীয়ভাবে যে রাজস্ব আয় হয়, তা দিয়ে এলাকায় ব্যাপক উন্নয়ন কর্মকান্ড বাস্তবায়ন করা যাবে। এদিকে কর্মবিরতির কারণে জন্ম নিবন্ধন, জাতীয়তা সনদসহ বিভিন্ন সেবা নিতে আসা সাধারন মানুষকে ফেরত যেতে হয়েছে।

কর্মবিরতী পালনকালে লামা পৌর কর্মকর্তা-কর্মচারী এ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক নূর মোহাম্মদ বলেন, রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে শতভাগ বেতন-ভাতা ও পেনসন প্রথা চালু করতে হবে। দাবী আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমাদের এ আন্দোলন চলতে থাকবে।

তারা আরো বলেন, পৌর কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ নাগরিক জীবনের সকল ক্ষেত্রে সেবা প্রদান করেও সরকারি কোষাগার থেকে বেতন-ভাতাসহ অন্যান্য সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। প্রায় সময় যথাসময়ে দেশের বিভিন্ন পৌরসভায় বেতন-ভাতা না পেয়ে পৌর কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করতে হয়।

মৈত্রী/এফকেএ/এএ

Banner