টানা বর্ষণে বান্দরবানের সাথে সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন

মোহাম্মদ আলী, বান্দরবান প্রতিনিধি
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ৯ জুলাই ২০১৯ সময়- ৮:০২ অপরাহ্ন

Pani Pic-1

বান্দরবান : বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট নিন্মচাপের প্রভাবে টানা ৫দিনের বৃষ্টির কারণে বান্দরবানের সঙ্গে চট্টগ্রাম ও কক্সবাজর সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। বান্দরবান কেরানী হাট সড়কের বাজালিয়ার সন্নিকটে অলিআহাম্মদ কলেজের পাশে সড়কে ৪ ফুট পানি উঠে যায়। যার কারণে সোমবার রাতে ও মঙ্গলবার সকাল থেকে এখন পর্যন্ত বান্দরবানের সাথে চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার সড়ক যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। ফলে উভয় পাশে আটকা পড়ে যানবাহনসহ যাত্রীরা। জেলার সাংগু ও মাতামুহুরী নদীর পানি বাড়ার কারনে জেলার লামা উপজেলার বিভিন্ন এলাকা প্লাবিত হওয়ার পাশা-পাশি নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হওয়ার সম্ভবনা দেখা দিয়েছে।

পাহাড়ী ঢলে বান্দরবান সদরের আর্মী পাড়া, মেম্বার পাড়া, শেরে বাংলা নগর, মধ্যম পাড়া, উজানী পাড়া, ক্যউচিংঘাটা, ভরাখালীসহ শহরের ব্যাপক এলাকা প্লাবিত হয়েছে। এ ছাড়াও লামা, আলীকদম ও নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার অধিকাংশ এলাকা পাহাড়ী ঢলে তলিয়ে গেছে। সেখানকার লোকজন নৌকায় চড়ে চলাফেরা করছে। এতে শত, শত ঘর-বাড়ী, ব্যবসা প্রতিষ্টান ও ফসলী জমি বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে। প্লাবিত এলাকা গুলোর মধ্যে রয়েছে লামা পৌরসভার নয়া পাড়া, উপজেলা পরিষদের আবাসিক এলাকা সমুহ, লামা বাজারের একাংশ, নুনারবিল, লামা বাস স্ট্যান্ড ,লামা থানা এলাকা,লাইনঝিরি ,ছাগলখাইয়া, ফকির পাড়া,কলিঙ্গাবিল, হাসপাতাল পাড়া, শিলেরতুয়া ও চেয়ারম্যান পাড়া। এছাড়া পৌরএলাকার হলিচাইল্ড পাবলিক স্কুলসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানও সরকারি, বেসরকারি দপ্তর সমুহ পাহাড়ী ঢলের পানিতে প্লাবিত হয়ে পড়েছে।

Pani Pic-3

এদিকে প্রবল বর্ষণ অব্যহত থাকায় খরশ্রোতা সাঙ্গু ও মাতামুহুরী নদীর পানি বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ভারী বর্ষণ অব্যাহত থাকায় পাহাড়ের পাদদেশে বসবাসরত পরিবার গুলোকে নিরাপদ আশ্রয়ে চলে যাওয়ার জন্য জেলা প্রশাসন ও পৌরসভার পক্ষ থেকে মাইকিং করে সর্তক করা হচ্ছে।

প্রশাসনের তথ্যমতে, কয়েকদিনের বৃষ্টির কারণে বান্দরবানে পাহাড় ধস, নিম্মাঞ্চল প্লাবিত হওয়ায় আশংকায় বান্দরবানের দুর্যোগ মোকাবেলায় জেলা সদরে ১০টি ও পুরো জেলায় ১২৬টি আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে।
উলেখ্য যে, সোমবার দুপুরে জেলা প্রশাসন, উপজেলা প্রশাসন ও রেড ক্রিসেন্টের সদস্যরা জেলা সদরের ইসলামপুর, কালাঘাটা, বালাঘাটা, ইসলামপুর, লাঙ্গীপাড়া, বড়–য়ার টেক, হাফেজঘোনাসহ বিভিন্ন পাহাড়ের পাদদেশে অবস্থানরত বাসিন্দাদের আশ্রয়স্থল পরিদর্শন করেছে এবং ঝুঁকিতে থাকা পরিবারগুলোকে নিরাপদ স্থানে সরে গিয়ে আশ্রয়কেন্দ্রে অবস্থানের জন্য অনুরোধ জানিয়েছে।

এসময় জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ দাউদুল ইসলাম, সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নোমান হোসেন প্রিন্স, রেড ক্রিসেন্টের সেক্রেটারি একেএম জাহাঙ্গীর, বান্দরবান সদর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোহাম্মদ আলমগীর, ৮নংওয়ার্ড পৌর কাউন্সিলর হাবিবুর রহমান খোকন, ওয়ার্ড পৌর কাউন্সিলর ৬নং ওয়ার্ড পৌর কাউন্সিলর শেকর দাশ, ৯নং ওয়ার্ড পৌর কাউন্সিলর মো. আবুল কালাম, ৭নং ওয়ার্ড পৌর কাউন্সিলর শামসুল ইসলাম সামু, ২নং ওয়ার্ড পৌর কাউন্সিলর মোহাম্মদ আলী, ওয়ার্ড পৌর কাউন্সিলর মো. আবুল খায়ের আবু, ৪৫৬নং ওয়ার্ড মহিলা পৌর কাউন্সিলর সালেহা বেগম, ৭৮৯নং ওয়ার্ড মহিলা পৌর কাউন্সিলর রাহিমা বেগম, নং ওয়ার্ড মহিলা পৌর কাউন্সিলর উজালা তঞ্চচংগ্যা সহ রেড ক্রিসেন্টের সদস্যরা উপস্থিত থেকে এই অভিযানে অংশ নেয়।

মৈত্রী/এফকেএ/এএ

Banner