ডাকসুকে তার পুরনো ঐতিহ্যে ফিরিয়ে আনতে হবে : রাশেদ খান মেনন

“ডাকসু সকল ঐতিহাসিক পরিবর্তনে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন। রাজনীতির বাইরেও সাহিত্য-সংস্কৃতি ক্রীড়া ক্ষেত্রে ছাত্রদের প্রতিভা বিকাশে ডাকসুর ভূমিকা অনন্য ছিল। একটি সুন্দর স্বচ্ছত পরিবেশে সেই ডাকসু নির্বাচন হোক এটাই সকলের কামনা। ডাকসু নির্বাচন সফল হলে দেশের সকল ছাত্র সংসদের নির্বাচনী অনুষ্ঠিত হতে পারবে। সুতরাং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও প্রশাসন এবং ছাত্রদের উপরে বড় দায়িত্ব অর্পিত হয়েছে একটি সফল ডাকসু নির্বাচন অনুষ্ঠিত করা। ডাকসুকে তার পুরনো ঐতিহ্যে ফিরিয়ে আনতে হবে। এটাই হোক আজকের প্রত্যয়।”

আজ বিকেলে ওয়ার্কার্স পার্টির কার্যালয়ে ছাত্র মৈত্রী সমর্থিত রাসেল-শিতি প্যানেলের নেতৃবৃন্দ এককালীন ডাকসুর ভিপি ও বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি কমরেড রাশেদ খান মেনন-এর সাথে দেখা করতে আসলে তিনি তাদেরকে এ কথা বলেন।
মেনন বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় জ্ঞান বিকাশের জায়গা। এখানে দখলদারিত্ব অথবা নেতাদের প্রটোকল দেয়া এসব কখনই গ্রহণযোগ্য নয়। ছাত্রদেরকে সহজ-সরল সুন্দর জীবনে আজকে ফিরিয়ে এনে ডাকসু তার দায়িত্ব পালন করবেন বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ছাত্র মৈত্রীর সভাপতি ফারুক আহমেদ রুবেল, সাংগঠনিক সম্পাদক মনিরুজ্জামান বিবর্তন, দপ্তর সম্পাদক হাসিদুল ইসলাম ইমরান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সভাপতি এবং ডাকসু সহসভাপতি (ভিপি) প্রার্থী শেখ রাসেল, সহসাধারণ সম্পাদক (এজিএস) রহমত উল্লাহ বাহাদুর, আন্তর্জাতিক সম্পাদক আশরাফুল বিন সাফী রাব্বী, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক আরাফাত রহমান, সাহিত্য সম্পাদক সানজিদা বারী, ছাত্র মৈত্রীর সাবেক সভাপতি দিপংকর সাহা দিপু, সহসভাপতি কায়সার আলম প্রমুখ।