ধস নামানো পরাজয়ের পর বিএনপি উপজেলা নির্বাচনে যেতে ভয় পাচ্ছে : ড. হাছান মাহমুদ

ঢাকা, নিজস্ব প্রতিবেদক লিগ্যালভয়েস : তথ্যমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘সংসদ নির্বাচনে ধস নামানো পরাজয়ের পর বিএনপি উপজেলা নির্বাচনে যেতে ভয় পাচ্ছে।’
আজ শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে প্রচার-উপ কমিটির সভা শেষে তিনি এই মন্তব্য করেন।
প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ.টি. ইমাম, ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তফা জব্বার, উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, শেখ তন্ময় প্রমুখ সভায় উপস্থিত ছিলেন।
তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ উপজেলা নির্বাচনে বিএনপির অংশগ্রহণ না করা প্রসঙ্গে বলেন, ‘কে নির্বাচনে অংশ নিবে, কে নিবে না , এটা তার একান্ত ব্যক্তিগত ব্যাপার।’
তিনি বলেন, ২০১৪ সালের নির্বাচনে বিএনপির অংশগ্রহণ না করা প্রকৃতপক্ষে তাদের আত্মহননের মতো সিদ্ধান্ত ছিল। আগামী উপজেলা নির্বাচনেও যদি তারা অংশগ্রহণ না করে, তাহলে সেটিও ২০১৪ সালের মতো আত্মহননের মতো সিদ্ধান্ত হবে।’
নির্বাচন কারও জন্য থেমে থাকবে না মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক বলেন, ‘২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে তারা অংশগ্রহণ করে নাই, কিন্তু সেই নির্বাচনের মাধ্যমে দেশে সরকার গঠিত হয়েছিল। সরকার পাঁচ বছর দেশ পরিচালনা করেছে। সুতরাং উপজেলা নির্বাচনেও যদি তারা না যায়, নির্বাচন থেমে থাকবে না।’
‘বিএনপি দলগতভাবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করলেও তাদের অনেক নেতা নির্বাচনে অংশ নিবে’ এমন মন্তব্য করে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘বিএনপির নির্বাচন নিয়ে বক্তব্য সব সময় নাচতে না জানলে উঠান বাঁকার মতো। ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে বিএনপির যে ধস নামানো পরাজয় হয়েছে, এরপর তারা আসলে নির্বাচনে যাওয়ার সাহস পাচ্ছে না। এটি হচ্ছে মূল বিষয়।’
তথ্যমন্ত্রী বলেন, আগামী ২২ ফেব্রুয়ারি জাতির পিতার ‘বঙ্গবন্ধু’ উপাধি প্রাপ্তির ৫০ বছর উদযাপন করা হবে। সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ‘বঙ্গবন্ধু’ খেতাব প্রাপ্তির ৫০তম বর্ষ ২২ ফেব্রুয়ারি। আমরা সেই উপলক্ষে ২৪ ফেব্রুয়ারি শিল্পকলা একাডেমিতে জায়গা প্রাপ্তি সাপেক্ষে দু দিন ব্যাপী বঙ্গবন্ধুর চিত্র প্রদর্শনী ও আলোচনা সভার আয়োজন করবো। এছাড়া ২০২০ সালের ১৭ মার্চ থেকে ২০২১ সালের ১৭ মার্চ পর্যন্ত মুজিব বর্ষ ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেই উপলক্ষে আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা কমিটির পক্ষ থেকে দেশ-বিদেশের বরেণ্য লেখকদের বক্তব্য সম্বলিত একটি প্রকাশনা বের করার ব্যাপারে প্রাথমিক সিদ্ধান্ত হয়েছে।’
তিনি আরও বলেন, ‘আপনারা জানেন ‘তারুণ্যই শক্তি’ এই শ্লোগান ছিল আমাদের ইশতেহারে। আরেকটি শ্লোগান ছিল ‘আমার গ্রাম আমার শহর’। গ্রামে যাবে সব শহরের সুবিধা। বাংলাদেশের তরুণরা এবার ব্যাপকভাবে আওয়ামী লীগকে সমর্থন জানিয়েছে। সেই কারণে আওয়ামী লীগের এবং আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন জোটের ধস নামানো বিজয় হয়েছে গত ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত নির্বাচনে। আমরা তরুণ প্রজন্মকে আমাদের কর্মকান্ডের সঙ্গে এবং জাতির জনকের স্বপ্ন পূরণে জাতির জনকের কন্যা শেখ হাসিনা ঘোষিত ভিশন-২০২১, ভিশন-২০৪১ বাস্তবায়নে আমরা তরুণ প্রজন্মকে আমাদের কর্মকান্ডে সম্পৃক্ত করার লক্ষ্যে, এপ্রিল মাসে দুদিন ব্যাপী কর্মশালার আয়োজন করবো।’
এছাড়া কমিটিকে আবারও পুনর্গঠিত করে বাগেরহাট ৪ আসনের সংসদ সদস্য শেখ তন্ময়, সাবেক ছাত্রনেতা সুজাতুর রহমান, সাবেক ছাত্রনেতা মাসুদুর রহমান এবং সালাউদ্দিন রিপনকে প্রচার উপ কমিটির সদস্য করা হয়েছে বলে জানান ড. হাছান মাহমুদ।