ডাকসু নির্বাচন বানচাল হলে দায় সরকারের : লিটন নন্দী

সরকারসহ বিভিন্ন মহল ডাকসু নির্বাচন ভণ্ডুলের নানা চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ করে ডাকসুর সম্ভাব্য সহ সভাপতি প্রার্থী বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক লিটন নন্দী বলেছেন, ‘ডাকসু নির্বাচন বানচাল হলে দায় সরকারকেই নিতে হবে।’

রাজধানীর পল্টনস্থ কমরেড মণি সিংহ-ফরহাদ স্মৃতি ট্রাস্ট ভবনে বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন পরিবারের আয়োজনে ‘আসন্ন ডাকসু নির্বাচন এবং শিক্ষার গণতান্ত্রিক পরিবেশ’ শীর্ষক এক মতবিনিময় সভায় তিনি এ অভিযোগ করেন।

তিনি বলেন, ডাকসু নির্বাচন শিক্ষাঙ্গণের গণতান্ত্রিক চর্চার পাওয়ার হাউস। ডাকসু নির্বাচন সম্পন্ন হলে সারাদেশের সকল বিশ্ববিদ্যালয় এবং কলেজসমূহে ছাত্র সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। পুনঃপ্রতিষ্ঠা হবে শিক্ষাঙ্গণে গণতান্ত্রিক পরিবেশ।

মতবিনিময় সভায় ছাত্র ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি এবং ডাকসুর সাবেক ভিপি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেন, ডাকসু নির্বাচনের মাধ্যমে গণতান্ত্রিক সকল আন্দোলনের সূতিকাগার ডাকসু। তাই অতীতের মত গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের লড়াইয়ে ডাকসু নির্বাচনে সকল গণতান্ত্রিক-প্রগতিশীল শক্তিতে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

সভাপতির সমাপনী বক্তব্যে জিএম জিলানী শুভ বলেন, ডাকসু নির্বাচনে সকল দখলদার স্বৈরাচারী অপশক্তিকে রুখে সাধারণ শিক্ষার্থীদের জয় নিশ্চিত করতে আমরা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। সেই লক্ষ্যে সকল প্রগতিশীল, গণতন্ত্রমনা ব্যক্তি সংগঠনের সাহায্য সহযোগিতা আমাদের প্রার্থনা। ডাকসু নির্বাচনের মাধ্যমেই গণতন্ত্রের ধারা পুনঃপ্রতিষ্ঠা হবে।

অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন ডাকসুর সাবেক ভিপি শামসুজ্জাম হীরা, রাকসুর সাবেক ভিপি রাগীব আহসান মুন্না, ছাত্র ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি আনোয়ারউল হক সহ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন হল সংসদের সাবেক নেতৃবৃন্দ এবং ছাত্র ইউনিয়নের সাবেক ও বর্তমান বিভিন্ন ছাত্র ইউনিয়ন নেতারা।