পেঁয়াজের কলি কয়েক মাস পর্যন্ত ভালো রাখবেন কীভাবে?

শীত মৌসুমে সবজির সঙ্গে বাজারে দেখা মেলে সবুজ পেঁয়াজের কলি। যেকোনো তরকারি, স্যুপের স্বাদ বাড়িয়ে দিতে এর জুড়ি মেলা ভার। কিন্তু সমস্যা হচ্ছে, এটি দ্রুতই নিস্তেজ হয়ে যায় কিংবা নষ্ট হয়ে যায়, তাই বেশিদিন ফ্রিজে রাখা যায় না। সঠিক উপায়ে সংরক্ষণ করা গেলে পেঁয়াজের কলিও ভালো থাকবে সপ্তাহ দুয়েক বা তার বেশি। জেনে নিন সে পদ্ধতি—

যেকোনো কিছু দীর্ঘদিন সংরক্ষণের চিন্তা থাকলে তা কখনই পানিতে ভেজাবেন না। শুকনা অবস্থায় সংরক্ষণ করা হলে ভালো থাকবে। পানি লেগে থাকলে দ্রুতই পচে যেতে পারে। নিতান্তই যদি ধুয়ে রাখার প্রয়োজন হয়, তাহলে খেয়াল রাখুন ভালোভাবে যেন পানি ঝরানো হয়।

এক সপ্তাহ পর্যন্ত ভালো রাখা সম্ভব পেঁয়াজের কলি। এজন্য একটি মুখ খোলা জারে পানি নিয়ে কলির গোড়া ভিজিয়ে রাখুন এবং পাত্রটি এমন জায়গায় রাখুন, যাতে সেটি আলো বাতাস পায় যথেষ্ট। দুদিন পর পর পানি বদলে দিন। এভাবে পাঁচ থেকে সাতদিন ভালো থাকবে কলি।

পেঁয়াজের কলি কুচি করে কাটুন। কিচেন টাওয়েল বিছিয়ে কুচি করা কলি রেখে মুড়ে নিন। ভালো করে মুড়ে স্প্রে বোতলে পানি নিয়ে স্প্রে করে নিন ওপরে। খুব বেশি ভেজাবেন না। হালকা ভেজা অবস্থায় ফ্রিজে রেখে দিন। কয়েকদিন পর শুকিয়ে গেলে আবার ভিজিয়ে নিন। এভাবে এক সপ্তাহ পর্যন্ত ভালো থাকবে কলি।

এছাড়া পেঁয়াজের কলি সংরক্ষণের আরেকটি উপায় হচ্ছে, এর গোড়া কেটে ফেলে দিয়ে মুখবন্ধ প্লাস্টিকের বাক্স বা জিপলক ব্যাগে রেখে দিন। খেয়াল রাখুন যে পাত্র বা ব্যাগে রাখা হবে, তাতে কোনোভাবেই যেন বাতাস না ঢোকে। এবার পাত্র বা ব্যাগটি রেখে দিন ফ্রিজে। এ উপায়ে সপ্তাহ দুয়েক বেশ ভালো থাকবে পেঁয়াজ কলি।

কেউ যদি দীর্ঘসময়ের জন্য সংরক্ষণ করতে চান, সেক্ষেত্রে তাকে গ্রহণ করতে হবে আরেকটি উপায়। পেঁয়াজ কলি কুচি করে একটি ট্রেতে ছড়িয়ে দিন। ট্রে নরমাল ফ্রিজে রাখুন ৩০ মিনিট। ফ্রিজ থেকে বের করে জিপলক ব্যাগে আটকে ডিপ ফ্রিজে রেখে দিন। বলা যায় এভাবে ফ্রোজেন করে রাখা পেঁয়াজ কলি তিন থেকে পাঁচ মাস ভালো থাকবে।