অপেশাদার ভিডিও জেরে সানাই আটক, মুচলেকা দিয়ে ছাড়া

ইন্টারনেটে অপেশাদার এবং অপ্রাসঙ্গিক ভিডিও ছড়ানোর অভিযোগে অভিনেত্রী সানাই মাহবুব সুপ্রভাকে আটক করেছে পুলিশ। রোববার তাকে আটকের পর ডিএমপির সাইবার সিকিউরিটি অ্যান্ড ক্রাইম ইউনিটের সাইবার নিরাপত্তা ও অপরাধ দমন বিভাগে নিয়ে আসা হয়েছে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য।

সেখান ডিবি পুলিশের হেফাজতে নিজের ফেসবুক আইডি দিয়ে লাইভে এসে নিজের কৃতকর্মের জন্য দুঃখ প্রকাশ করেন সানাই। এসময় তাকে বোরকা পরা অবস্থায় দেখা যায়।

লাইভে এসে তিনি বলেন, ‘এই দুপুরবেলা আমি সবাইকে একটি বিশেষ ম্যাসেজ দিতে এসেছি। আমার সমালোচিত কন্টেন্টগুলো আমি কোনো বিশেষ উদ্দেশ্য বা কোনো আর্থিক লাভের আশায় করি নাই। সাইবার ক্রাইম ইউনিটে এসে আমার বিশেষভাবে অনুধাবন হয়েছে যে কোনো শ্রেণির লোক বিশেষ করে শিশুরা যাদের বয়স ১৮ বছরের নিচে তারা ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।

অতএব এটা নিশ্চিতভাবেই আমার ভুল ছিল। আমি এদেশের একজন নাগরিক হিসেবে এদেশের সুস্থ সংস্কৃতির বিকাশে এদেশের আইন মেনে চলে একজন ভালো শিল্পী হতে চাই। ইতিপূর্বে আমার ব্যক্তিগত বা যৌথভাবে করা বিব্রতকর ছবি বা ভিডিওর জন্য দুঃখিত।

আমি ভবিষ্যতে এ ধরনের কাজ থেকে বিরত থাকব। আমার নিয়ন্ত্রণে থাকা সবধরনের প্রোফাইল থেকে এ ধরনের কন্টেন্টগুলো মুছে ফেলব এবং অন্যান্য কন্টেন্টগুলোর বিষয়ে সাইবার ক্রাইম ইউনিউটের সহায়তা চাচ্ছি।’

Posted by Sanayee Mahbob on Sunday, February 17, 2019

জবানবন্দিতে সানাই আরও বলেন, ‘আমি সবাইকে আহ্বান জানাচ্ছি আমরা দেশের ইন্টারনেটকে নিরাপদ রাখবো এবং সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ স্লোগানকে এগিয়ে নিয়ে যাবো। সবাইকে আমার সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।’

তিনি নিরাপদ ইন্টারনেটের ক্যাম্পেইনে অংশ নিচ্ছেন দাবি করে বলেন, ‘এটা আসলে নিরাপদ ইন্টারনেটের ক্যাম্পেইন চলছে। আমি অবশ্যই বাংলাদেশের আইনকে সমর্থন করি, শ্রদ্ধা করি। আমি নিরাপদ ক্যাম্পেইনিংয়ের সাথে আছি। ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে যে কোনো ধরনের সাহায্য সহযোগিতার জন্য আমি সানাই তাদের সাথে আছি।’

প্রসঙ্গত, মডেল হিসেবে শোবিজে আগমন ঘটে সানাই মাহবুব সুপ্রভার। এরপর তিনি বেশ কিছু সিনেমাতে চুক্তিবদ্ধ হন। তবে কোনো ছবিই তার মুক্তি পায়নি। হঠাৎ করেই সিনেমা থেকে দূরে সরে যান তিনি। ফেসবুক সেলিব্রেটির তকমা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছবি ও লাইভ ভিডিও দিয়ে বিতর্কিত হতে থাকেন।