বঙ্গবন্ধু উপাধি ছিল জাতির পক্ষ থেকে জাতির পিতার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ

সাইয়্যদ মো: রবিন

প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম বলেন, বাঙ্গালীর স্বপ্নদ্রষ্টা বঙ্গবন্ধু। তিনি আমাদের জাতিস্বত্তা আমাদের মধ্যে গেঁথে দিয়েছেন। বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ তৈরিতে জাতিকে উদ্বুদ্ধ করেছেন।
তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান রাষ্ট্রকে গড়ে তুলেছিলেন। একই সঙ্গে বিশ্ব দরবারে বিশ্ব নেতার কাতারে নাম লেখান।

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য তোফায়েল আহমেদ বলেন, বঙ্গবন্ধু উপাধি ছিল সমগ্র বাঙালী জাতির পক্ষ থেকে জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ।


তিনি বলেন, পৃথিবীতে অনেক বিশেষ দিন রয়েছে, তবে ২৩ ফেব্রুয়ারি বাঙালী জাতির জন্য একটি বিশেষ এবং অনন্য দিন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ভাষা আন্দোলনের মধ্য দিয়ে বাঙালীর স্বাধীনতার বীজ বপন করেছিলেন। তৎকালীন সৈরাচার আইয়ুব খান জানতেন একজন লোক কখনও আপোষ করে না, আর তিনি হলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।
তোফায়েল আহমেদ বলেন, বঙ্গবন্ধুর মনেও কর্মে সর্বদা স্বাধীনতার আকাঙ্খা ধ্বনিত হতো। কারণ বাঙালী জাতির জন্য বঙ্গবন্ধুর ভালোবাসা ছিল সীমাহীন।

রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমিতে আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা উপ-কমিটির উদ্যোগে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ‘বঙ্গবন্ধু’ উপাধি প্রাপ্তির ৫০ বছর উদযাপন উপলক্ষে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।


আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য এবং আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা উপ-কমিটির চেয়ারম্যান এইচ টি ইমামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, তথ্যমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব সৈয়দ হাসান ইমাম ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ। আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন সভা পরিচালনা করেন।



তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী বঙ্গবন্ধু না হলে বাংলাদেশ স্বাধীনতা অর্জন করতে পারতো না। বঙ্গবন্ধু জানতেন কোন সময় কোনটি করতে এবং কোন সময় কোনটি বলতে হবে। স্বাধীনতার জন্য বঙ্গবন্ধু জাতিকে প্রস্তুত করেছিলেন।
তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু মাত্র সাড়ে তিন বছরেই দেশকে উন্নত রাষ্ট্রে পরিণত করার ভিত্তি স্থাপন করেছিলেন। বাংলাদেশ আজ সামাজিক, অর্থনৈতিক, মানব সম্পদসহ সকল সূচকে পাকিস্তানের চেয়ে এগিয়ে।