নবম ওয়েজ বোর্ডের ব্যাপারে বাস্তবসম্মত সমাধান চায় সরকার : কাদের

ঢাকা, ২৬ জানুয়ারি ২০১৯ লিগ্যালভয়েস : সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সংবাদপত্র ও সংবাদ সংস্থায় কর্মরত সাংবাদিক ও কর্মকর্তা-কর্মচারিদের জন্য ঘোষিত নবম ওয়েজ বোর্ডের ব্যাপারে সরকার একটি ‘যৌক্তিক ও বাস্তবসম্মত’ সমাধানে পৌঁছাতে অত্যন্ত আন্তরিক।
আজ শনিবার তথ্য মন্ত্রণালয়ের কনফারেন্স রুমে নবম ওয়েজ বোর্ডের সুপারিশ পর্যালোচনার জন্য পুনর্গঠিত মন্ত্রিসভা কমিটির সভা শেষে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা আলোচনার মাধ্যমে বিষয়টির একটি যৌক্তিক ও বাস্তবসম্মত সমাধান করতে চাই।’

কমিটির সদস্য তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, শিল্পমন্ত্রী নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন এবং সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ সভায় উপস্থিত ছিলেন।

সভা শেষে ওয়েজ বোর্ডের সুপারিশ পর্যালোচনা কমিটি ‘নিউজপেপারস ওনার্স এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (নোয়াব)’-এর নেতৃবৃন্দের সাথে বৈঠক করেন।

এই পুনর্গঠিত মন্ত্রিসভা কমিটির আহ্বায়ক ওবায়দুল কাদের বলেন, ইস্যুটি পুরাতন, কিন্তু ‘আমরা আমাদের যাত্রা নতুন করে শুরু করলাম।’

তিনি বলেন, সরকার এই বিষয়টিকে অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে দেখছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত ২১ জানুয়ারি নতুন সরকারের প্রথম মন্ত্রীসভার বৈঠকে এ বিষয়ে উচ্চ পর্যায়ের শক্তিশালী মন্ত্রীসভা কমিটি গঠন করেছেন।
ওবায়দুল কাদের সংক্ষিপ্ত নোটিশে নোয়াব নেতৃবৃন্দ সভায় যোগদান করায় তাদেরকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, এটা হচ্ছে প্রাথমিক আলোচনা, সভায় তারা তাদের পর্যবেক্ষণ ও মন্তব্য বা মতামত দিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘সভায় উন্মুক্ত আলোচনা হয়েছে এবং তারা আমাদেরকে তাদের মূলকথা জানিয়েছেন। সাংবাদিকদের সাথে আরও আলোচনা হবে।’
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, নবম ওয়েজ বোর্ড রোয়েদাদের বিষয়টি খুব সহজ নয়। এখানে কিছু জটিলতা আছে এবং সমাধান খুঁজে বের করার জন্য পারস্পরিক সহযোগিতা প্রয়োজন।
তিনি বলেন, ‘যদি কমিটি একতরফাভাবে ওয়েজ বোর্ড রোয়েদাদ ঘোষণা করে তাহলে তা বাস্তবায়ন প্রক্রিয়ায় সমস্যা সৃষ্টি হবে। আমরা যদি একতরফাভাবে ঘোষণা করি, তাহলে কোন ফলাফল আসবে না। কেউ সুবিধা পাবেন না।”
ইলেকট্রনিক মিডিয়া সম্পর্কে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকদের বিষয়টি ওয়েজ বোর্ডের আওতায় আনার জন্যও আমরা বিবেচনা করছি। এ পর্যায়ে আরো আলোচনা অনুষ্ঠিত হবে।’
ভূঁইফোড় অনলাইন সংবাদপত্রের সংখ্যা বৃদ্ধি সম্পর্কিত এক প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, দেশে কিছু অনলাইন সংবাদপত্র আছে যারা ভালো কাজ করছে। কিন্তু বেশ কিছু ভূঁইফোড় অনলাইন সংবাদপত্র রয়েছে, সম্প্রচার নীতিমালা প্রণয়ন হয়ে গেলে সেগুলোর বিকাশ কমে যাবে।
সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সাত সদস্য বিশিষ্ট এই কমিটির প্রধান। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, কৃষিমন্ত্রী ড. আবদুর রাজ্জাক, শিল্পমন্ত্রী নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন, সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কেএম খালিদ এবং শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান।